রবিবার , ২৬ মে ২০১৯
Home » খেলাধুলা » বাবা, তুমি সুপার হিরো
f8c835afa1545141a4de3caf092447b6-5b7aa00fe4b5d

বাবা, তুমি সুপার হিরো

বাংলা সংলাপ ডেস্কঃম্যাচের আগে যখন মাঠে ঢুকছেন, বাকি সবার সঙ্গে একজন করে মাসকট। কিন্তু ডেভিড সিলভার সঙ্গে দুজন। একজনকে তো হাতে ধরে রেখেছেন, অন্যজন ছিল ম্যানচেস্টার সিটি মিডফিল্ডারের কোলে। ঘটনাটা কাল প্রিমিয়ার লিগে, হাডার্সফিল্ডের বিপক্ষে সিটির ম্যাচে। পরম মমতায় জড়িয়ে ধরে রাখা ছেলেটা সিলভারই, নাম মাতেও। যাকে নিয়ে সিলভার আবেগময় একটা গল্প আছে। যে গল্প বলে দেয়, বাবারা নিজের বুকটাকে দুর্ভেদ্য দুর্গ বানিয়ে কীভাবে আগলে রাখেন সন্তানদের। সন্তানের জন্য বাবারা করতে পারেন না, এমন অসাধ্য কিছু নেই। বাবারা যে সন্তানের দুনিয়ায় সত্যিকারের একজন সুপার হিরো।

গত বছরের শেষের দিকে জন্ম নিয়েছিল মাতেও। কিন্তু সে ছিল অপরিণত এক শিশু। মায়ের গর্ভে ৩৬ সপ্তাহ থেকে পৃথিবীর আলোতে আসে একটি শিশু। একটু একটু করে বড় হয় ভেতরে। ছোট্ট ভ্রূণ থেকে রূপ নেয় মানবশিশুতে। ধীরে ধীরে জন্মায় শরীরের সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ। কিন্তু মাতেও পৃথিবীতে এসেছিল ২৫ সপ্তাহ গর্ভে থেকেই। পৃথিবীটা দেখার জন্য যে তর সইছিল না!

কিন্তু তারপর শুরু হয় মাতেওর বেঁচে থাকার যুদ্ধ। যে যুদ্ধে ছেলে মাতেওকে হারতে দেননি বাবা সিলভা। আর ওই সময়টায় ক্লাব সিটির সতীর্থ থেকে শুরু করে কোচ পেপ গার্দিওলাও দারুণ সহযোগিতা করেছেন সিলভাকে। পরিবারের পাশে থাকার জন্য ছুটি দিয়েছেন, দিয়েছেন মানসিক সমর্থনও। নিজের এই সতীর্থ আর বন্ধুদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেই বুঝি কাল সিলভা মাঠে নিয়ে এসেছিলেন তাঁর ছেলেকে। খেলা শুরুর আগে পরম মমতায় তাঁর কোলে থাকা ছেলেকে চুমু খাওয়ার দৃশ্যটা মন ভালো করে দেবে যেকোনো বাবার, যেকোনো ফুটবলপ্রেমীর।

ছেলেকে গ্যালারিতে রেখে কাল গোলও করলেন। ম্যাচ শেষে কথা বলতে গিয়ে কোচ গার্দিওলা ভোলেননি বাবা সিলভার সেই সংগ্রামমুখর সময়টার কথা। কাল লিগে হাডার্সফিল্ডকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে সিটি। সিলভা নিজে গোল না পেলে ক্ষতি ছিল না। তবে গার্দিওলা যেন সিলভার ফ্রি-কিক গোলটাতেই সবচেয়ে খুশি। এখন হয়তো মাতেও বুঝবে না। কিন্তু বড় হলে এই ম্যাচের ছবি আর ভিডিও দেখলে কী যে খুশি হবে!

গার্দিওলা বলেছেন, ‌‘ও দারুণ খেলেছে, এটাই ছিল এই মৌসুমে ওর প্রথম ম্যাচ। ও খুব উজ্জীবিত ছিল। কারণ, আজ ওর খেলা দেখতে গ্যালারিতে ছিল ওর স্ত্রী, বাবা-মা, বিশেষ করে ওর ছেলে মাতেও। সিলভা অবিশ্বাস্য একটা গোল করেছে। বাবাকে প্রথম খেলতে দেখার এই স্মৃতি আজীবন মনে রাখবে মাতেও। গত মৌসুমে ওর পরিবারের ওপর দিয়ে ঝড় বয়ে গেছে। ছোট্ট ছেলেটাকেও টিকে থাকার জন্য অনেক লড়াই করতে হয়েছে। সেই লড়াই জিতে আজ সে এখানে!’

আরও দেখুন

Ruba iftar

রাজশাহী ইউনিভার্সিটি ব্যারিস্টার্স এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল

বাংলা সংলাপ ডেস্কঃ রাজশাহী ইউনিভার্সিটি ব্যারিস্টার্স এসোসিয়েশন ( রুবা) উদ্যোগে এক ইফতার মাহফিল ২৩ শে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *